ঢাকা | শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৭ আষাঢ় ১৪৩১

তাকে সময় দিন, যেন সে হারিয়ে না যায়

নট আউট ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৭ ডিসেম্বর ২০২৩ ২১:৪০

ছবি সংগৃহীত ছবি সংগৃহীত

মশিউর রহমান শাওনঃ ১৮ বছর ২২৮ দিন ! এই বয়সে বাংলাদেশ যুব দলের হয়ে বড় সাফল্যের অংশ চৌধুরি মোহাম্মদ রিজওয়ান। যুব এশিয়া কাপের ফাইনালে ব্যক্তিগত দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের মালিকও তিনি। ৭১ বলে ৬০ রানের ইনিংসে এক ছক্কার পাশাপাশি চার ছিল চারটি। টুর্নামেন্ট সেরা আশিকুর রহমান শিবলির সাথে গড়েছেন ১২৫ রানের জুটি। আর এতেই বড় সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ দল। 

সমর্থকদের আগ্রহজুড়ে তামিম-সাকিব-মুশফিকরা বরাবরই। সাফল্য ছাড়া জুনিয়র টাইগারদের খোঁজ খবর রাখবে এমন মানুষের সংখ্যা খুবই কম। যারা রাখে তারা হয়তো ক্রিকেটারদের পরিবারের সদস্য, নয়তো ছোট বেলার কোচ অথবা মিডিয়ার মানুষজন। আর সাধারণ মানুষের আগ্রহ কম বলেই জুনিয়ররা ভালো করে বলে মনে করেন কেউ কেউ। 

সদ্য যুব এশিয়া কাপ জয়ী এই দল থেকে যারা ভবিষ্যতে জাতীয় দলকে নেতৃত্ব দিতে পারে তাদের একজন চৌধুরি মোহাম্মদ রিজওয়ান। তবে ফাইনাল ম্যাচের আগে নিজের সামর্থ্যের সবটুকু দিতে পারেননি তিনি। ৪ ম্যাচে করেছিলেন মাত্র ৬৭ রান। এক ম্যাচে ছাড়িয়েছেন ৩০ রানের ঘর।  সেটিও আবার থেমেছে মাত্র বত্রিশে। চাপ কাটিয়ে ফাইনালে পারফরম্যান্স করা ‘বড় ক্রিকেটার’ হওয়ার লক্ষণ বলে মনে করছেন রিজওয়ানের ছোটবেলার ক্রিকেট চর্চার সঙ্গী ছিলেন সাজু ইসলাম। 

রিজওয়ানের বেড়ে ওঠা দেবীগঞ্জ উপজেলার পামুলি ইউনিয়নে। একই উপজেলার সাজু ইসলাম ছিলেন খণ্ডকালীন কোচ। ২০১৬ সালে লম্বা একটা সময় রিজওয়ানকে নিয়ে কাজ করেছিলেন তিনি। ‘পরিশ্রমে’ বিশ্বাসী বলেই রিজওয়ান চাপ কাটাতে পেরেছেন বলেও মনে করেন সাজু। 

সাজু বলেন, ‘২০১৬ সালে রিজওয়ানের সাথে ক্রিকেট নিয়ে কাজ করেছিলাম। সেসময়ে যেহেতু তার বয়স কম ছিল, দুর্বলতা থাকাও তাই স্বাভাবিক ছিল। চেষ্টা করেছিলাম দুর্বলতাকে শক্তিতে পরিণত করার। আমি যতটা কাছে থেকে দেখেছি, তাকে নিয়ে মন্তব্য একটাই সে ‘পরিশ্রমে বিশ্বাসী একজন ক্রিকেটার’। 

রিজওয়ান মূলত একজন পেস বোলিং অলরাউন্ডার। যুব এশিয়া কাপে বল হাতে নিয়েছেন তিন উইকেট। ইতোমধ্যে তার ভূমিকার সাধুবাদ জানাচ্ছে অনেকে। তাকে নিয়ে প্রত্যাশার গ্রাফ বড় হচ্ছে ক্রিকেট প্রেমীদের। তবে আপাতত তাকে নিয়ে খুব বেশি চাহিদা প্রকাশ না করার অনুরোধ করেছেন সাজু ইসলাম। একই সাথে রিজওয়ানের প্রতি অনুরোধ রেখেছেন যাতে করে মানুষের প্রশংসার জোয়ারেও নিজেকে ঠিক পথে রাখেন।

সাজু বলেন, ‘নিশ্চয়ই সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে সে (রিজওয়ান) একদিন জাতীয় দলকে প্রতিনিধিত্ব করবে। তার ক্রিকেটীয় শক্তির জায়গা, ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি বোলিংও করতে পারে। ইতোমধ্যে তাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক বেশি প্রত্যাশার পোস্ট লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তবে আমি অনুরোধ করবো তাকে নিয়ে এখনই খুব বেশি প্রত্যাশা করবেন না। তাকে সময় দিন, যেন সে হারিয়ে না যায়’। পাশাপাশি তার (রিজওয়ানের) প্রতি চাওয়া যেন প্রশংসার মাঝেও নিজের কাজ ঠিকঠাক করে।

রিজওয়ান নিশ্চয়ই বাংলাদেশ ক্রিকেটের সম্পদ। ভবিষ্যতে বাংলাদেশ দলকে নিশ্চয়ই তিনি প্রতিনিধিত্ব করবে। রিজওয়ানদের জন্য বরাবরই শুভকামনা। 

 

-নট আউট/এমআরএস



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর

তিন পান্ডবের পাঁচ সেঞ্চুরি, ইমপ্যাক্টে এগিয়ে.....

বিশ্বকাপে ২৯ ম্যাচ খেলা সাকিবের রান ১১৪৬৷ ২৯ ম্যাচে মুশফিকের ৮৭৭ রান৷ এই রান নিয়ে রয়ে...

৬, ৬, ৬, ৬, ৬—‘রিংকু সিং’ হ্যাভ ডান ইট!

শেষ ওভারে এমন খুনে ব্যাটিং এর আগে কেউ দেখেনি বোধহয়।

তাকে সময় দিন, যেন সে হারিয়ে না যায়

‘২০১৬ সালে রিজওয়ানের সাথে ক্রিকেট নিয়ে কাজ করেছিলাম। সেসময়ে যেহেতু তার বয়স কম ছিল, দু...